বুধবার, ০৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০১:০২ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
কুমিল্লার বুড়িচংয়ে একদিনে তিন জনের আত্মহত্যা এলজিইডি কুমিল্লা দপ্তরে মান নিয়ন্ত্রণ ল্যাবরেটরি সংক্রান্ত প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত ধর্মের অপব্যাখ্যা রোধে ওলামা মাশায়েখদের মূখ্য ভূমিকা পালন করতে হবে : উপজেলা চেয়ারম্যান টুটুল কুমিল্লাস্থ বরুড়া উপজেলা উন্নয়ন সমিতির উদ্যোগে সহস্রাধিক শিক্ষার্থী পেল খাবার ও কলম কুমিল্লার সদর দক্ষিণে ফেন্সিডিলসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার প্রায় এক যুগ পর মুরাদনগরে ক্ষতিগ্রস্ত রাস্তার সংস্কার কাজের উদ্বোধন শত কেজি গাঁজা ও ইয়াবা ট্যাবলেট সহ দুই ভারতীয় নাগরিক আটক শেখ হাসিনা উন্নয়নের স্বপ্ন দেখেন আবার তা বাস্তবায়নও করেন : কুমিল্লা জেলা প্রশাসক চান্দিনায় এমপি’র পর এবার অনুসারীদের ভিডিও ভাইরাল চান্দিনায় পুলিশ পরিচয়ে ছিনতাইকালে চারজন আটক ব্রাহ্মণপাড়ায় মসজিদের ইমামকে গলা কেটে হত্যা চেষ্টার  অভিযোগে একজন গ্রেফতার  যোগদান করেই বুড়িচং থানার নতুন ওসি ইসলাম হোসেন যা বললেন রবীন্দ্রের মাত্র ২৪ হাজারের মরোনত্তর বীমা দাবির লক্ষাধিক টাকার চেক পেল নমিনি রমা রানী কুমিল্লায় র‍্যাবের অভিযানে ভারতীয় পণ্যসহ পাঁচ চোরাকারবারি আটক ভাষার মাসে ৫২ তে দৈনিক রূপসী বাংলা কুমিল্লা টাউনহল মাঠে বিএনপির সমাবেশে মুরাদনগরের সহস্রাধিক নেতাকর্মীর অংশগ্রহণ  দাউদকান্দিতে ৫শ পিস ইয়াবা সহ মাদক কারবারি আটক দেশে সত্যিকার গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করতে হলে রাজপথের আন্দোলনের বিকল্প নেই : কুমিল্লার সমাবেশে ড. খন্দকার মোশাররফ সিসি ক্যামেরায় চোরের দেখা মিললেও উদ্ধার হয়নি মোটরসাইকেল খলিফায়ে আজম শাহসূফি আলমগীর খান মাইজভান্ডারীর খোশরোজ শরীফ উদযাপন

আজ মহান বিজয় দিবস : বাঙালির শৌর্যবীর্য ও বীরত্বের অবিস্মরণীয় দিন

প্রতিসময় ডেস্ক
  • আপডেট টাইম বুধবার, ১৬ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ২৭৪ দেখা হয়েছে

আজ বাঙালি জাতির হাজার বছরের শৌর্যবীর্য এবং বীরত্বের এক অবিস্মরণীয় দিন।আজ পৃথিবীর মানচিত্রে বাংলাদেশ নামে একটি স্বাধীন ভূখন্ডের নাম জানান দেয়ার দিন ১৬ ডিসেম্বর।মহান বিজয় দিবস। বিজয়ের ৪৯তম বর্ষ।টানা ন’মাসের দুঃস্বপ্নের অবসান ঘটিয়ে বাঙালি জাতির জীবনে আসে নতুন প্রভাত।১৬ ডিসেম্বর সূর্যোদয়ের সাথে সাথে সূচিত হলো মুক্তিযুদ্ধের অনিবার্য বিজয়, হাজার বছরের কাঙ্খিত স্বাধীনতা।ত্রিশ লাখ শহীদের রক্ত আর লাখ লাখ ধর্ষিতা মা-বোনের সম্ভ্রমের বিনিময়ে বিজয়ের মধ্যদিয়ে স্বাধীনতা ধরা দেয় বাঙালির জীবনে।

১৯৭১ সালের এদিনে বাঙালি জাতি পরাধীনতার শেকল ভেঙ্গে প্রথম স্বাধীনতার স্বাদ গ্রহণ করে।২৪ বছরের নাগ পাশ ছিন্ন করে জাতির ভাগ্যাকাশে দেখা দেয় এক নতুন সূর্যোদয়।প্রভাত সূর্যের রক্তাভা ছড়িয়ে পড়ে বাংলাদেশের এ প্রান্ত থেকে ও প্রান্তে।সমস্বরে একটি ধ্বনি যেন নতুন বার্তা ছড়িয়ে দেয় ‘জয়বাংলা’ বাংলার জয়….।

মহামুক্তির আনন্দ ঘোর এই দিনে এক নতুন উল্লাস জাতিকে প্রাণ সঞ্চার করে সজিবতা এনে দেয়। যুগ যুগ ধরে শোষিত বঞ্চিত বাঙালি চোখে আনন্দ অশ্রু আর ইস্পাত কঠিন দৃঢ়তা নিয়ে এগিয়ে যায় সামনে। বিন্দু বিন্দু স্বপ্নের অবশেষে মিলিত হয় জীবনের মোহনায়।বিশ্ব কবির সোনার বাংলা, নজরুলের বাংলাদেশ, জীবনানন্দের রূপসী বাংলা, রূপের তাহার নেইকো শেষ, বাংলাদেশ আমার বাংলাদেশ। বাঙালি যেন খুঁজে পায় তার আপন সত্তাকে।

১৯৬২, ১৯৬৯ এবং ১৯৭০ শেষ করে ১৯৭১-এ বাঙালি জাতি হিসাব করতে বসে। হিসেব-নিকেশ আর দেনা-পাওনায় পাকিস্তানিরাও বসে নেই। তারাও অংক কষতে থাকে কিভাবে বাঙালি জাতিকে যুগ যুগ ধরে পরাধীনতার শেকল পরিয়ে রাখা যায়। তাদের কাছে এই অলংকারই বাঙালির শ্রেষ্ঠ প্রাপ্য। ঘড়ির কাঁটার টিক টিক শব্দ জানিয়ে যায় সময় আসছে হিসেব নিকেশ চুকিয়ে দেয়ার পালা।

অবশেষে গভীর কালো নিকষ আঁধার থেকে জেগে উঠে হিরন্ময় হাতিয়ার।৭ মার্চ রেসকোর্স ময়দানে একাত্তরের বিশাল জনসমুদ্র থেকে বাঙালির হজার বছরের শ্রেষ্ঠ সন্তান বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বজ্রকণ্ঠ ঘোষণা দেন ‘এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তি সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম। রক্ত যখন দিয়েছি তখন আরো দেব, তবুও এদেশকে মুক্ত করে ছাড়বো ইনশাআল্লাহ।’

এই একটি মাত্র উচ্চারণে যেন বাঙালি সত্যিকার দিক-নির্দেশনা পেয়ে যায়। চূড়ান্ত লড়াইয়ের প্রস্তুতি নিতে থাকে বাঙালি। বাঙালি বুঝে যায় শেষ কামড় দেয়ার সময় আসন্ন। পাকিস্তানিরাও আর বসে নেই। পুরো জাতিকে স্তব্ধ করার লক্ষ্যে মারাত্মক মারণাস্ত্র নিয়ে ২৫ মার্চ একাত্তর ঘুমন্ত জাতির উপর ঝাঁপিয়ে পড়ে। শুরু হয় বাঙালি নিধন যজ্ঞ। বাতাসে লাশের গন্ধ বারুদে বারুদে ধোঁয়ায় আচ্ছন্ন আকাশ। এ যেন এক প্রেতপুরী। আকাশে শকুনের উদ্যত থাবা, নিচে বিপন্ন মানুষের বিলাপ। হায় বাংলাদেশ।একি বাংলাদেশ। এ যেন এক জ্বলন্ত শশ্মান। কিন্তু ঠিকই হাড়ের খুলী একদিন পাললিক হয়।

মুক্তি পাগল বাংলার দামাল ছেলেরা স্বাধীনতার রক্ত সূর্যকে ছিনিয়ে আনবে বলে একদিন অস্ত্র কাঁধে তুলে নেয়। ছাত্র, শিক্ষক, বুদ্ধিজীবী, কৃষক, শ্রমিক, কামার, কুমার সবাই শরিক হয়ে থাকে এ লড়াইয়ে। যতই দিন অতিবাহিত হতে থাকে আরো শাণিত হয় প্রতিটি মুক্তিযোদ্ধার অস্ত্র। লক্ষ্য স্থির রেখে শত্রু হননে দৃঢ়তায় এগিয়ে যায় বীর বাঙালি। ইতোমধ্যেই বাঙালির স্বাধিকার আন্দোলনের প্রতি আন্তর্জাতিক সমর্থন স্পষ্ট হয়ে উঠে। প্রতিবেশী ভারতও জড়িয়ে পড়ে বাঙালির ভাগ্য যুদ্ধে। ডিসেম্বর শেষ পর্যায়ে এসে চূড়ান্ত রূপ নেয় এই যুদ্ধের।

জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃতে নয় মাস সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধের পর ১৯৭১ সালের এই দিনে বিকেলে রেসকোর্স ময়দানে (বর্তমান সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে) হানাদার পাকিস্তানী বাহিনী যৌথবাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করে। বিশ্বের মানচিত্রে অভ্যুদয় ঘটে নতুন রাষ্ট্র বাংলাদেশের।

যে অস্ত্র দিয়ে বর্বর পাকবাহিনী দীর্ঘ নয় মাস ত্রিশ লাখ বাঙালিকে হত্যা করেছে, দু’লাখ মা-বোনের সম্ভ্রম কেড়ে নিয়েছে সেই অস্ত্র পায়ের কাছে নামিয়ে রেখে এক রাশ হতাশা এবং অপমানের গ্লানি নিয়ে লড়াকু বাঙালির কাছে পরাজয় মেনে নেয় তারা। সেই থেকে ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবস পালিত হয়ে আসছে।

# দেশ-বিদেশের গুরুত্বপূর্ণ খবর জানতে প্রতিসময় (protisomoy) ফেসবুক পেইজে লাইক দিন। এছাড়া protisomoy ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন ও বেলবাটন ক্লিক করে নতুন নতুন ভিডিও নিউজ পেতে অ্যাকটিভ থাকুন।

Last Updated on December 16, 2020 10:32 am by প্রতি সময়

শেয়ার করুন
এই ধরনের আরও খবর...

বিস্তারিত জানতে ছবিতে ক্লিক করুন।

themesba-lates1749691102