বুধবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২২, ০৯:৩৯ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
কুমিল্লার তিতাসে দুইপক্ষের সংঘর্ষে একজন নিহত কুমিল্লার মনোহরগঞ্জে রেলক্রসিং পারাপারের সময় ট্রেনের ধাক্কায় সিএনজি অটোরিকসার চার যাত্রী নিহত শেখ মনি’র জন্মদিনে কুমিল্লায় মাদ্রাসা শিক্ষার্থীরা পেল শীতবস্ত্র কিশোরগঞ্জ বুড়িচংয়ের ময়নামতিতে বাস-সিএনজি সংঘর্ষে ১ জন নিহত কুমিল্লা শিক্ষাবোর্ডের মহান বিজয় দিবসের মাসব্যাপী কর্মসূচির উদ্বোধন চৌদ্দগ্রামে কলেজ শিক্ষার্থী হত্যার ঘটনায় আটক ৪ মেসি জাদুতে কোয়ার্টার ফাইনালে আর্জেন্টিনা লালমাই দুই ইউপি নির্বাচনে ১১১ জনের প্রার্থীতা বৈধ কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন ৮ ডিসেম্বর দেবিদ্বারে ছাত্রলীগের কমিটিতে কিশোর গ্যাং সদস্য! কুবি শিক্ষকের বিরুদ্ধে সহকারী প্রক্টরকে লাঞ্ছনার অভিযোগ বীর মুক্তিযোদ্ধা সংস্কৃতিজন ও ছড়াকার জহিরুল হক দুলালের সুস্থতা কামনায় দোয়া ও মিলাদ  কুমিল্লা নগরীর বিসিক এলাকা থেকে ইয়াবা ও দেশীয় অস্ত্রসহ চারজন গ্রেফতার কুমিল্লায় বন্ধুকে খুনের দায়ে একজনের মৃত্যুদণ্ড চৌদ্দগ্রামে ব্যাডমিন্টন খেলা নিয়ে সংঘর্ষে প্রাণ গেল কলেজ ছাত্রের কুমিল্লার দেবিদ্বারে আমিরুন নেছা ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে শীত বস্ত্র বিতরণ কুমিল্লা জেলা পুলিশের ব্যতিক্রমী উদ্যোগ : পাসপোর্ট সেবা গ্রহীতাদের জন্য চালু হলো ‘ক্ষুদে বার্তা’ সেবা ব্রাহ্মণপাড়ায় বাইপাস সড়কসহ তিনটি প্রকল্পের উদ্বোধন কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির নির্বাচনে হট্টগোল সদর দক্ষিণে গাঁজাসহ দুই মাদক কারবারি আটক

কবর খোঁড়ার নিপুন কারিগর মনসুর আলীর আত্মকথা

রাজু আহমেদ, জেলা প্রতিনিধি মেহেরপুর
  • আপডেট টাইম বৃহস্পতিবার, ৩০ জুলাই, ২০২০
  • ২৫৯ দেখা হয়েছে

মৃত্যু সকল জীবের জন্য অপরিহার্য। মানুষের মৃত্যু হলে বিভিন্ন ধর্মের মানুষ নানা নিয়মে মৃত ব্যক্তির চির বিদায়ের ব্যবস্থা করে থাকেন। মুসলমানদের দেওয়া হয় কবর। কবর দেওয়ার প্রথা হযরত আদম আঃ থেকে মুসলিম সমাজে চলে আসছে। মানুষ মারা যাওয়ার পর করব দেওয়ার জন্য সবচেয়ে বড় কাজ করব খোঁড়া। আর এই কবর খোঁড়ার কাজ করে থাকে গ্রামের বয়স্ক ব্যক্তিরা। এ কাজ তাঁরা করে পরম মমতায়। কারণ এই ঘর তাঁর শেষ ঠিকানা। তেমনই একজন কবর খোঁড়ার নিপুন কারিগর মনসুর আলী। তিনি মেহেরপুরের মুজিবনগরে বিশ্বনাথপুর গ্রামে ১৯৫৫ সালে জন্মগ্রহন করেন। তিনি নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবারের সন্তান। পেশার তাগিতে কৃষি কাজ করে থাকেন।

মনসুর আলীর কাছে থেকে জানা যায়, তিনি তার ৬৫ বছরের জীবনে একাধারে গ্রামের অনেক মানুষের কবর খোঁড়া সহ মৃত ব্যক্তির কবর দেওয়ার সকল কাজ করে এসেছেন। গ্রামের মানুষের কাছে তিনি একজন মহান ব্যক্তিত্ব। গ্রামের যখনই কেউ মৃত্যু বরণ করেন খবর পাবার সাথে সাথেই তিনি তার সকল কাজ ফেলে রেখে কবর খোঁড়া, বাঁশ কাটা সহ মৃত ব্যক্তিকে কবর দিতে যে যে কাজ গুলো করতে হয় তা তিনি সবই করে থাকেন।

তিনি আরো বলেন যে, তিনি মৃত ব্যক্তির জন্য কবর খোঁড়া সহ সকল কাজ করতে পারায় তার কাছে অনেক ভাল লাগে। গ্রামে কেউ মারা যাওয়ার খবর শুনলেই তিনি আগ্রহে মৃত ব্যক্তির বাড়ি গিয়ে সকল কাজ তাড়াতাড়ি করার জন্য বলেন এবং কবরস্থানে গিয়ে কবর খোঁড়ার কাজ শুরু করেন।

মনসুর আলীর মাধ্যমে আরো জানা যায়, মনসুর আলী আজ বয়োবৃদ্ধ তাই গত ৬ মাস আগে থেকে কবর খোঁড়ার কাজটি আর করেন না। বার্ধক্য আসায় এই কাজ করার জন্য শরীরে আর তেমন শক্তি পায় না। বিভিন্ন সময় শরীরে নানান ব্যাধী হওয়ায় তিনি আর কবর খোঁড়ার কাজ করতেন পারছেন না। তবে তিনি তার বড় মোঃ লাল্টুকে মৃত ব্যক্তির কবর দেওয়ার সকল কাজ শিখিয়ে দিয়েছেন। এতে করে কোনো মৃত ব্যক্তির কবর খোঁড়ার জন্য মনসুর আলীর ডাক হলে তার ছেলে লাল্টুকে পাঠিয়ে দেই। লাল্টু তার বাবার কৃতিত্ব ধরে রাখতে নিষ্ঠার সাথে কবর খোঁড়ার সকল কাজ সঠিক ভাবে করে থাকেন।

‘মানুষ মানুষের জন্য’ এই মতাদর্শের উপর বিশ্বাস রেখে সমাজের একজন আরেক জনের সাহায্যে এগিয়ে আসে। তেমনই মৃত ব্যক্তিদের সঠিক নিয়মানুসারে কবর দেওয়া একটি দায়িত্ব ও কর্তব্য। এদেশে কবর খোঁড়ার সুদীর্ঘ ইতিহাস টিকে থাকবে মনসুর আলীদের হাত ধরেই।

 

 

Last Updated on July 30, 2020 4:07 am by প্রতি সময়

শেয়ার করুন
এই ধরনের আরও খবর...

বিস্তারিত জানতে ছবিতে ক্লিক করুন।

themesba-lates1749691102