শনিবার, ১০ ডিসেম্বর ২০২২, ০১:২৭ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
কুমিল্লায় বেগম রোকেয়া দিবস পালন ও জয়িতা সংবর্ধনা কুমিল্লা স্টেডিয়ামে আবাহনী-ফরটিজের খেলা ১ -১ গোলে ড্র গোলাপবাগ মাঠে গণসমাবেশের অনুমতি পেল বিএনপি মির্জা ফখরুল ও মির্জা আব্বাস কারাগারে কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আ’লীগের সভাপতি লোটাস কামাল সাধারণ সম্পাদক মুজিবুল হক আওয়ামী লীগকে এতো সহজে ক্ষমতা থেকে সরানো যাবে না : কুমিল্লায় আ’লীগের সম্মেলনে শেখ সেলিম নাঙ্গলকোটে হাফেজদের পাগড়ী প্রদান ও কৃতি শিক্ষার্থীদের পুরষ্কার বিতরণ কুমিল্লায় খেলা হবে কোয়ার্টার ফাইনাল : ওবায়দুল কাদের কুমিল্লা মুক্ত দিবস উদযাপন কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা যুবদল সভাপতি সহ দুইজন গ্রেফতার নয়াপল্টনে পুলিশ-বিএনপি সংঘর্ষে নিহত এক, আহত ২০ কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়ায় ১৮ কেজি গাঁজাসহ মাদক কারবারি গ্রেফতার  দাউদকান্দিতে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি বিজরিত ডাকবাংলোর সংস্কার কাজের উদ্বোধন কুমিল্লার তিতাসে শয়নকক্ষে বৃদ্ধার গলাকাটা লাশ কুমিল্লায় জামাত শিবিরের ২০ নেতা-কর্মী আটক বাগমারা স্কুল মাঠে কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন কাল কুমিল্লার তিতাসে দুইপক্ষের সংঘর্ষে একজন নিহত কুমিল্লার মনোহরগঞ্জে রেলক্রসিং পারাপারের সময় ট্রেনের ধাক্কায় সিএনজি অটোরিকসার চার যাত্রী নিহত শেখ মনি’র জন্মদিনে কুমিল্লায় মাদ্রাসা শিক্ষার্থীরা পেল শীতবস্ত্র কিশোরগঞ্জ বুড়িচংয়ের ময়নামতিতে বাস-সিএনজি সংঘর্ষে ১ জন নিহত

করোনায় কর্মহীন মেহেরপুর পর্যটনশিল্পের হাজারো মানুষ

রাজু আহমেদ, জেলা প্রতিনিধি মেহেরপুর
  • আপডেট টাইম শনিবার, ১৮ জুলাই, ২০২০
  • ২০৬ দেখা হয়েছে

করোনা মানুষকে কর্মহীন করার পাশাপাশি ধ্বস নামিয়েছে দেশের পর্যটন শিল্পে। করোনাকালে বেকার হয়ে পড়েছে এই শিল্পের সাথে সম্পৃক্ত মেহেরপুর জেলার হাজারও মানুষ। সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে  পর্যটন স্পটকে কেন্দ্র জীবিকা নির্বাহ করা দোকানি ও হকাররা। অনেকে পেশা ত্যাগ করে বেছে নিয়েছেন অন্য পেশা।

গত ১৮ ই মার্চ থেকে বন্ধ রয়েছে ঐতিহাসিক মুজিবনগর স্বাধীনতা স্মৃতি কমপ্লেক্স পর্যটন কেন্দ্র।এবারের ঈদেও মুজিবনগর স্বাধীনতা স্মৃতি কমপ্লেক্স পর্যটন কেন্দ্র, আমঝুপি ও ভাটপাড়া নীল কুঠিসহ মুজিবনগরের পর্যটন স্পট গুলি দর্শনার্থীদের জন্য খুলে দেওয়ার সম্ভাবনা নেই বলে জানিয়েছেন কর্তৃপক্ষ।

মুজিবনগর উপজেলা নির্বাহী অফিসার উসমান গনি বলেন, করোনা থেকে বাঁচতে সকলকে সামাজিক দুরুত্ব বজায় রাখতে হবে। সেক্ষেত্রে, মুজিবনগরে পর্যটক আসলে এক ধরনের গ্যাদারিং সৃষ্টি হবে এবং করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তাই আমরা উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশ মোতাবেক মুজিবনগর স্মৃতি কমপ্লেক্সসহ মুজিবনগর উপজেলার পর্যটন স্পটগুলি সকল দর্শনার্থীদের জন্য বন্ধ ঘোষনা করেছিলাম। তবে, এবার ঈদে পর্যটন কেন্দ্রগুলো দর্শনার্থীদের জন্য খুলে দেওয়ার ব্যাপারে উর্ধতন কর্তৃপক্ষের কোন নির্দেশনা এখনো পায়নি। নির্দেশ না পাওয়া পর্যন্ত মুজিবনগরের পর্যটন কেন্দ্রগুলো বন্ধ থাকবে।

বাংলাদেশের প্রথম রাজধানী ও বাংলাদেশের প্রথম সরকারের শপথ ভূমি ঐতিহাসিক মুজিবনগর স্বাধীনতা স্মৃতি কমপ্লেক্স। মুক্তিযুদ্ধ ভিত্তিক বাংলাদেশের বিশাল মানচিত্র, মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি ভাস্কর্য স্বাধীনতা স্মৃতি যাদুঘর এবং সর্বপরি মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসকে জানতে প্রতি বছরে বিশেষ দিন ছাড়াও সারাবছর মুজিবনগর উপজেলার সবচেয়ে বড় পর্যটন স্পট মুজিবনগর স্মৃতি কমপ্লেক্সসহ পাশের পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে দর্শনার্থীদের পদচারনায় মুখরিত থাকে। বিশেষ করে দুই ঈদে সবচেয়ে বেশি দর্শনার্থীদের ভিড় হয়।

মেহেরপুর জেলা পর্যটন কেন্দ্রগুলোর দেখভালের দায়িত্বে থাকা লোকজন জানান, করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের পর থেকে এই জেলায় অবস্থিত মুজিবনগর কমপ্লেক্স ও আমঝুপি নীলকুঠি’র মতন পর্যটন কেন্দ্র বন্ধ থাকায় সরকার লাখ লাখ টাকার রাজস্ব হারাচ্ছে। কর্ম হারিয়ে দিনের পর দিন বেকার হয়ে পড়ছে স্বল্প আয়ের মানুষেরা।

মুজিবনগরের পর্যটন কেন্দ্রের ক্ষুদ্র ব্যাবস্যায়ী সোনাপুর গ্রামের আব্দুল কুদ্দুস জানান, আমি দীর্ঘদিন ধরে মুজিবনগর আমবাগানে চা বিক্রি করে আসছি। দিন গেলে এক থেকে দেড় হাজার টাকা উপার্জন হত। সংসার চালিয়ে কিছু টাকা জমা করে রাখতেন ভবিষ্যতের কথা ভেবে। এখন জমা করাতো দুরের কথা ঠিকমত সংসার চালানোই মুশকিল তার জন্য। পেশা বদল করে তিনি এখন আমের ব্যবসা করেন। কাঁচা আম কিনে পাকানোর পর বাজারে বসে খুচরা দরে বিক্রি করেন। কুদ্দুস বলেন “আমের সিজিন শেষ। এখন কি করবো বুঝতে পারছি না আশায় ছিলাম ঈদে মুজিবনগর পর্যটন কেন্দ্র খুলবে শুনছি এবার ঈদেও পর্যটন কেন্দ্র খুলবে না বয়সও হইছে কঠিন কাজতো করতে পারবো না। দেখা যাক ভাগ্যে কি আছে” ?

হোটেল ব্যবসায়ী মহিদুল ইসলাম জানান, করোনার কারনে দীর্ঘদিন ধরে হোটেল বন্ধ রেখেছি। খাওয়ার লোক নেই। নিজের কিছু জমি আছে সেই সাথে অন্যের কিছু জমি লিজ নিয়ে চাষাবাদ করছি।

মুজিবনগরের পর্যটন কেন্দ্রের আরেক ক্ষুদ্র কসমেট্রিক্স ব্যাবসায়ী পলাশ বলেন,করোনার কারনে দীর্ঘদিন ধরে দোকান বন্ধ আছে। পর্যটক না থাকায় দোকানে বেচাকেনা হচ্ছে না। তাই দোকান বন্ধ রেখেছি। আমি এখন আম পাড়ার লেবার হিসেবে কাজ করছি।

মুজিবনগর আমবাগানে চট বিছিয়ে খেলনা বিক্রি করতেন মোজাম্মেল হক। এখন তিনি পাখি ভ্যান চালান। যদিও তাতেও রয়েছে কঠোর নির্দেশনা। তারপরও জীবিকার তাগিদে ভ্যান চালাতে বাধ্য হয়েছেন ৫৫ বছরের মোজাম্মেল।

কসমেট্রিক্স ব্যবসায়ী আব্দুর রাজ্জাক জানান,আমি মাঠে কাজ করতে পারি না। কসমেট্রিক্স ব্যবসায়ের উপর আমার সংসার চলতো। করোনার কারনে মুজিবনগরে পর্যটক না আসায় দীর্ঘদিন ধরে দোকানে কোন কাস্টমার নেই। তারপরও খুলে রেখেছি স্থানীয়দের আশায়।

পাইকারী খেলনা ব্যবসায়ী শরিফুল মোল্লা জানান, আমরা সাধারণত খুচরা ব্যবসায়ীদের কাছে খেলনা বিক্রি করে থাকি। করোনার কারনে মুজিবনগরে পর্যটক না আসায় খুচরা ব্যবসায়ীরা তাদের মালামাল বিক্রি করতে পারছি না। এতে করে ঘরে মালামাল বোঝায় করে রেখেছি। মালামাল গুলো বিক্রি করতে না পেরে আমরা লোকসানের মুখে পড়েছি।

মুজিবনগরের পর্যটন কেন্দ্রগুলো আবার খুলে দেয়ার বিষয়ে মুজিবনগর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আব্দুল হাশেম জানান, করোনার কারনে উর্ধতন কতৃিপক্ষের নির্দেশে প্রায় ৪ মাস ধরে মুজিবনগরে সকল পর্যটকদের প্রবেশ বন্ধ করা হয়েছে। ওপর মহলের নির্দেশ মতই আবার মুজিবনগর গেট খুলে দেওয়া হবে।তবে যদি কোন দর্শনার্থী এখানে এসে যায় তাহলে তাদের বুঝিয়ে ফেরত পাঠিয়ে দেওয়া হয়। তাছাড়া বিভিন্ন স্থান থেকে আমার কাছে মুজিবনগরের পর্যটন কেন্দ্রগুলো খুলে দেওয়া হবে কিনা জানার জন্য ফোন আসে। আমি তাদের জানায় উর্ধতন কর্তৃপক্ষের কোন নির্দেশ এখনো পায়নি।

 

 

Last Updated on July 18, 2020 4:01 am by প্রতি সময়

শেয়ার করুন
এই ধরনের আরও খবর...

বিস্তারিত জানতে ছবিতে ক্লিক করুন।

themesba-lates1749691102