শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ০৩:২৫ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
চান্দিনায় বাল্য বিবাহ পড়ানোর দায়ে মৌলভীকে জরিমানা করায় তুলকালাম কান্ড! শিক্ষক বাতায়নে সেরা উদ্ভাবক নির্বাচিত হলেন হোমনার নজরুল ইসলাম শিব নারায়ণ দাস আর নেই, প্রধানমন্ত্রীর শোক -শনিবার বিকেলে কুমিল্লা টাউন হল মাঠে শ্রদ্ধা জানাবে সর্বস্তরের মানুষ মুরাদনগরে প্রাণিসম্পদ সেবা সপ্তাহ ও প্রদর্শনীর উদ্বোধন উদ্বোধনের দুই ঘণ্টা পরই পর্দা নামলো প্রাণিসম্পদ প্রদর্শনীর! চিকিৎসকের পাশাপাশি রোগীর সুরক্ষা নিশ্চিত করাও আমার দায়িত্ব : স্বাস্থ্যমন্ত্রী -কুমিল্লায় ক্যান্সার হাসপাতাল নির্মাণের দাবি জানালেন এমপি বাহার কুমিল্লা সাংস্কৃতিক জোটের নববর্ষের অনুষ্ঠান ‘বৈশাখ অবগাহন’ পরিবেশিত হবে ৪ মে নাঙ্গলকোট উপজেলায় নতুন এসিল্যান্ড দাউদকান্দিতে সরকারি ন্যায্য মূল্যের ফার্মেসি বন্ধ বাংলাদেশের চিকিৎসা সেবা বিশ্বের অনেক উন্নত দেশের তুলনায় এগিয়ে আছে : স্বাস্থ্যমন্ত্রী বুড়িচংয়ে এক সপ্তাহের ব্যবধানে তিন বাড়িতে ডাকাতি! সাংবাদিক রমিজ খানের দাফন সম্পন্ন -কুমিল্লা প্রেসক্লাবসহ বিভিন্ন সংগঠনের শ্রদ্ধা মল্লিকা বিশ্বাসের কবিতা ‘দীপ্ত বৈশাখ’ মুরাদনগরের রামচন্দ্রপুর বাজারে জমে ওঠেছে বৈশাখী মাছের মেলা পহেলা বৈশাখের রাতে চান্দিনার মধ্যবাজারে অগ্নিকান্ডে ১১ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পুড়ে ছাই কুমিল্লা নগরীতে বৈশাখি মাছের মেলায় ঐতিহ্যের ছোঁয়া  বর্ষবরণ উৎসব আমাদের জাতিসত্ত্বার বিকাশ ঘটায় : এমপি বাহার -পহেলা বৈশাখে অসাম্প্রদায়িক চেতনায় উজ্জীবিত কুমিল্লার সর্বস্তরের মানুষ বিএনপির সব ষড়যন্ত্র ব্যর্থ হওয়ার পর তারা এখন মনগড়া তথ্য দিয়ে নির্লজ্জ মিথ্যাচার করছে : ওবায়দুল কাদের উপজেলা নির্বাচনে নিজেদের গ্রহণযোগ্যতা পরীক্ষা করে দেখতে পারেন : কুমিল্লায় স্থানীয় সরকারমন্ত্রী মুরাদনগরে ইউপি সদস্যের বাড়িতে ভাঙচুর অগ্নিসংযোগ

তজুমদ্দিন সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসক ও জনবল সংকটে মেলে না কাঙ্ক্ষিত সেবা

আরিফ হোসেন, তজুমদ্দিন (ভোলা) প্রতিনিধি
  • আপডেট টাইম মঙ্গলবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ৩২৫ দেখা হয়েছে

নেই প্রয়োজনমত চিকিৎসক, নেই বিভিন্ন বিভাগে জনবল। ফলে এধরণের সংকটে স্বাস্থ্যসেবায় দুরবস্থা দেখা দিয়েছে ভোলার তজুমদ্দিনের ৫০ শয্যা সরকারি হাসপাতালে।
হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীরা পড়ছেন ভোগান্তিতে। জনবলের এমন সংকটের কারণে নষ্ট হচ্ছে এক্সরে মেশিন, ল্যাবসহ টেকনিক্যাল গুরুত্বপূর্ণ জিনিসপত্র।

জানা যায়, উপজেলার সাধারণ মানুষের চিকিৎসার একমাত্র ভরসা হাসপাতালটি হলেও এখানে রয়েছে চিকিৎসকের ৬টি পদ শূণ্য। একজন মেডিকেল অফিসার ইউনানী থাকলেও দীর্ঘদিন তিনি প্রেষনে রয়েছে বোরহানউদ্দিনে। পদগুলি শূণ্য থাকায় রোগীরা পাচ্ছেন না প্রয়োজীয় চিকিৎসাসেবা। বাধ্য হয়েই রোগীদের যেতে হচ্ছে ভোলা সদর, বরিশাল অথবা রাজধানী ঢাকাতে।

এছাড়া হাসপাতালটিতে যে সকল পদ শূণ্য রয়েছে, ইউনিয়ন সেন্টারে সহকারী সার্জন ৫টিতে ১টি শূন্য, নাসিং সুপারভাইজার ২টিতে ২টি শূণ্য, সিনিয়র ষ্টাফ নার্স ১৩ জন থাকলেও ১জন রয়েছে ভোলা প্রেষনে, হাসপাতালে স্যাকমো ৭টিতে ৬টি শূন্য, মেডিকেল টেকনোলজিষ্ট (ল্যাব) ২টিতে একজন থাকলেও তিনি রয়েছেন প্রেষনে ভোলায়, মেডিকেল টেকনোলজিষ্টের ৪টি পদে ২জন থাকলেও তাদেও একজন প্রেষনে ভোলা সদরে অন্যজন ১০ বছর যাবৎ রয়েছেন ঢাকায় প্রেসনে আর ২টি রয়েছে শূন্য। ফার্মাসিষ্ট ২টিই শূণ্য, প্রধান সহকারী কাম-হিসাব রক্ষকের পদটি শূণ্য, অফিস সহকারী কাম-কম্পিউটার অপারেটরের ৩টি পদেই শূন্য, ষ্টোর কিপার ১টিতে একটি শূন্য, পরিসংখ্যানবিদ ১জন থাকলেও তিনি প্রেষনে ভোলায় রয়েছেন। সহকারী সেবক ১টিকে একটি শূণ্য, স্বাস্থ্য পরিদর্শকের ২টি পদ শূন্য, সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক ৬টিতে ২টি শূন্য একজন ভোলায় প্রেষনে, স্বাস্থ্য সহকারী ৩২টিতে ৬টি শূন্য, পিএইচসিপি ১৯টিতে ৪টি শূন্য, অফিস সহায়ক ৪টিতে দুইটি, ওয়ার্ডবয় ৩টিতে দুইটি, কুক/মশালচী ২টিতে দুইটি, মালী ১টিতে একটি ও পচ্ছিন্নতা কর্মি ৫টিতে ৩টি শূন্য।

অনুসন্ধানে জানা যায়, একটি পদে একজন কর্মরত থাকলেও আবার সেই কর্মরত ব্যক্তি নিজের পছন্দমত জায়গায় প্রেষন নিয়ে বসে আছেন। তারা ৬মাস থেকে শুরু করে ১০ বছর পর্যন্ত প্রেষনে রয়েছে। যার কারণে তার নিজ কর্মস্থল তজুমদ্দিন হাসপাতালটিতে চিকিৎসাসেবা হতে বঞ্চিত হচ্ছেন সাধারণ মানুষ।

সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, জনবল সংকটে নষ্ট ও অকেজো হচ্ছে এক্সরে মেশিনসহ মূল্যাবান মেশিনপত্র। চিকিৎসক সংকটের কারণে সেবা নিতে আসা রোগীরা দীর্ঘ সময় লাইনে দাড়িয়ে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

হাসপাতালে চিকিৎসাসেবা নিতে আসা স্বপন দেবনাথ বলেন, হাসপাতালটিতে ডাক্তার সংকট না হলে আমাদেরকে দীর্ঘ সময় ব্যবস্থাপত্রের জন্য লাইনে দাড়িয়ে থাকতে হতো না। দীর্ঘ সময় লাইনে দাড়িয়ে সেবা নিতে আসা রোগীদের ভোগান্তি বাড়ছে।

তজুমদ্দিন হাসপাতালের আরএমও ডা. মোঃ হাসান শরীফ বলেন, জনবল সংকটের কারণে রোগীর বিভিন্ন ধরনের টেষ্ট বাহিরে করতে হয়। আর তখনি রোগীদের সাথে আমাদের সমস্যার সৃষ্টি হয় জনবল ঠিক থাকলে হাসপাতালে সরকারী খরচে রোগীরা কম খরচে টেষ্ট করাতে পারতো। তিনি আরো বলেন, বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক না থাকায় শিশু ও অর্থপেডিকসের রোগীদের আমরা ভোলায় রেফার করতে হয়। এখানে ডাক্তার থাকলে মানুষ ভোলায় যেতে হতো না।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. সোহেল কবির বলেন, হাসপাতালটিতে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পদ থাকলেও স্বাধীনতার পর থেকে কোন বিশেষজ্ঞ চিৎিসকে পদায়ন করা হয়নি। ডাক্তার, জনবল সংকট ও প্রেষনের বিষয়ে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে আশা করা যায় দ্রæত সমাধান হবে। তিনি আরো বলেন, প্রেষনের বিষয়ে সুনিদিষ্ট নীতিমালা থাকার দরকার যে সে কতদিন প্রেষন ভোগ করতে পারবে।

#দেশবিদেশের গুরুত্বপূর্ণ খবর জানতে protisomoy ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে এবং protisomoy news ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করে অ্যাকটিভ থাকুন

Last Updated on September 22, 2020 3:17 pm by প্রতি সময়

শেয়ার করুন
এই ধরনের আরও খবর...

বিস্তারিত জানতে ছবিতে ক্লিক করুন।

themesba-lates1749691102