শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ০৯:১১ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
বিএনপির সব ষড়যন্ত্র ব্যর্থ হওয়ার পর তারা এখন মনগড়া তথ্য দিয়ে নির্লজ্জ মিথ্যাচার করছে : ওবায়দুল কাদের উপজেলা নির্বাচনে নিজেদের গ্রহণযোগ্যতা পরীক্ষা করে দেখতে পারেন : কুমিল্লায় স্থানীয় সরকারমন্ত্রী মুরাদনগরে ইউপি সদস্যের বাড়িতে ভাঙচুর অগ্নিসংযোগ উৎসবমুখর পরিবেশে বরুড়ার পয়ালগাছা বহুমুখী উচ্চবিদ্যালয়ের গৌরবের ৮০ বছর পূর্তি উদযাপন বিনোদনকেন্দ্রগুলোতে দর্শনার্থীদের ঢল ঈদের জামাতে ঈদগাহ ছাপিয়ে সড়কে মুসল্লিদের ঢল সাম্য-সম্প্রীতির বার্তা নিয়ে এলো খুশির ঈদ ব্রা‏হ্মনপাড়ায় মাওলানা আ. বাতেন ফাউন্ডেশনের সেলাই মেশিন ও নগদ অর্থ পেল হতদরিদ্ররা চান্দিনায় সড়ক দুর্ঘটনায় স্বামীর পর চিকিৎসাধীন স্ত্রী ও ছেলের মৃত্যু ঈদের অনাবিল আনন্দে মেতে উঠতে প্রস্তুত কুমিল্লাবাসী শেষ হয়েও হচ্ছেনা ঈদের কেনাকাটা মেয়রের দায়িত্ব গ্রহণ করলেন তাহসিন বাহার সূচনা রমজানের ঐ রোজার শেষে এলো খুশির ঈদ কুমিল্লার চান্দিনায় ঈদের কেনাকাটা শেষে সড়কে প্রাণ গেল দুবাই প্রবাসীর ।। স্ত্রী-সন্তান লাইফ সাপোর্টে বিজয়নগরে ফুটবল খেলা দেখতে গিয়ে বিদ্যুতের তারে জড়িয়ে শিশুর মর্মান্তিক মৃত্যু দেবিদ্বারে দেড় হাজার পরিবারের মাঝে পোষাক ও ঈদ খাদ্যসামগ্রী বিতরণ কুমিল্লায় জাতীয় সাংবাদিক সংস্থার উদ্যোগে ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত কুমিল্লায় চার্টার্ড লাইফের মৃত্যুদাবির চেক পেলেন নমিনি চান্দিনায় অবৈধভাবে বালু উত্তোলন ও বিক্রির দায় ড্রেজার ব্যবসায়ির কারাদণ্ড ঈদযাত্রা আনন্দমুখর করতে মহাসড়কে তিন স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা : কুমিল্লায় হাইওয়ে পুলিশ প্রধান

সাড়ে তিন বছর আগে আত্মহত্যা নিয়ে আবেগঘন পোষ্ট জান্নাতুল হাসিনের

সাদিক মামুন
  • আপডেট টাইম বুধবার, ২ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ৬৩৩ দেখা হয়েছে

ময়নাতদন্ত শেষে জান্নাতুল হাসিনের লাশ বুধবার (২ ডিসেম্বর) বিকেলে কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার শংকুচাইল উত্তরগ্রামে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে।একই দিন সকাল সাড়ে ১১টায় কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গ থেকে ময়না তদন্ত শেষে পুলিশ হাসিনের পিতা বিএনপি নেতা ইঞ্জিনিয়ার ইদ্রিস মেহেদীর কাছে লাশ হস্তান্তর করেন।

জান্নাতুল হাসিন আত্মহত্যা করবে- এটা তার পরিবার এমনকি বন্ধুমহলের ভাবনার বাইরে।২০১৭ সালের ৮ মে জান্নাতুল হাসিন তার নিজে ফেসবুক আইডি থেকে আত্মহত্যা নিয়ে একটি  পোষ্টে লিখেছিলেন- ‘যে মানুষটা আত্মহত্যা করেন/তাকে কেউ না কেউ/আগেই হত্যা করে ফেলেন/ভিতরটা আগেই মরে যায়/পরে অস্তিত্ব বিলীন হয়’।

বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব বিজনেস অ্যান্ড টেকনোলজি (বিইউবিটি) থেকে বিবিএ সম্পন্ন করে ঢাকার মিরপুর-৬ এ মার্কেন্টাইল ব্যাংকের একটি শাখায় ইন্টারশীপ করা জান্নাতুল হাসিনের আত্মহত্যার বিষয়টি গোটা পরিবারসহ তার বন্ধুমহলে শোকের ছায়া এনে দিয়েছে। কেনো হাসিন আত্মহত্যা করলো এর সঠিক কারণ কেউই বলতে পারছেন না।

আত্মহত্যার ঘটনায় কুমিল্লা কোতয়ালী মডেল থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা হয়েছে।  মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই আবদুর রহিম জানান, ময়নাতদন্ত শেষে আজ (মঙ্গলবার) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে লাশ তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।  প্রাথমিকভাবে এটাকে আত্মহত্যা হিসেবে ধরে নিয়ে অপমৃত্যু মামলা হয়েছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট হাতে আসার পর মৃত্যুর কারণ জানা যাবে।

স্থানীয় সূত্র বলছে, ঢাকায় বড় বোন জান্নাতুল হেসানের বাসায় থেকে পড়ালেখা ও একটি বেসরকারি ব্যাংকে ইন্টারশীপ করলেও রাত করে বাড়ি ফেরা ও চালচলন নিয়ে বোনের শাসন সহ্য না হওয়ায় কুমিল্লায় নিজ বাড়িতে চলে আসা এবং একটি ছেলের সাথে প্রেমের সম্পর্কের টানাপোড়নে মান-অভিমানেই আত্মহত্যার পথ বেছে নেয় জান্নাতুল হাসিন।

তার আত্মহত্যার খবর অনলাইন নিউজপোর্টালে প্রচার হওয়ার পরই ফেসবুকে অনেকেই তার পুরনো ছবি, ৯তলা ভবনের নিচে গলির রাস্তায় পড়ে থাকা লাশের ছবি পোষ্ট করে নানারকম কমেন্টস করেছেন-কেউ বলছেন, তার প্রেমিক অন্যত্র বিয়ে করায় সে আত্মহত্যা করেছে। Rodoshi Ava নামে তার এক বন্ধু লিখেছেন-‘কতটা ফাস্ট্রেশন থাকলে একটা মানুষ এই কাজ করতে পারে।’ মনিরুল ইসলাম নবরাজ নামে আরেকজন লিখেছেন-আরেফিনের লগে কিছু হইছিল?

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, হাসিন বেশ কয়েক বছর ধরেই ঢাকার মিরপুর-৭ এর আরামবাগ হাউজিংয়ের নিরাকুঞ্জে তার বড় বোন জান্নাতুল হেসানের বাসায় থেকে পড়ালেখা করতো। ভগ্নিপতি মুনতাসির লতিফ ও হাসিনের বড় বোন  জান্নাতুল হেসান দুজনই বেসরকারি চাকরিজীবী। সম্প্রতি বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব বিজনেস অ্যান্ড টেকনোলজি (বিইউবিটি) থেকে স্নাতক শেষে মিরপুরে মার্কেন্টাইল ব্যাংকে ইন্টারশীপ করছিল হাসিন। কুমিল্লায় খুব একটা আসা হতো না তার।

সোমবার (৩০নভেম্বর) ঢাকা বোনের বাড়ি থেকে কুমিল্লা নগরীর ধর্মসাগরের পশ্চিমপাড় সিটি করপোরেশন কার্যালয়ের পেছনে নিজ বাড়ি ‘হোমল্যান্ড’ এ চলে আসেন।সোমবার দুপুরেই বাড়িতে এসে খাওয়া-দাওয়ার পর অনেকটা চুপচাপ থেকেই নিজের রুমে সারাদিন ঘুমায়।পরদিন মঙ্গলবার দুপুরে আত্মহত্যার সিদ্ধান্ত নিয়েই নিজের ঘর থেকে মাত্র ৫০ গজ দুরত্বের প্রতিবেশির নির্মানাধীন বহুতল ভবনটি বেছে নেয়।মঙ্গলবার দুপুর দেড়টার দিকে হাসিন বাড়ির পাশের দোকান থেকে শেম্পু কেনার কথা বলে বের হয়।

এদিকে ১০ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর অফিসের সিসি টিভি ফুটেজে দেখা গেছে, আত্মহত্যার আগে হাসিন ঘর থেকে বের হয়ে মাত্র ৫০গজ দুরত্বের রাস্তাটি বেশ স্বাভাবিকভাবেই পার হয়ে গোল্ড সিলভার হোমসের নির্মানাধীন ৯তলা ভবনের গেইটে প্রবেশ করে।সেখানে সে দারোয়ানের সাথে কথা বলেই উপরে উঠে।এই অল্পসময়ে ফুটেজে তাকে মোটেই বিচলিত মনে হয়নি।

ওই ভবনের দারোয়ান হাবিব জানান, ‘মেয়েটি (হাসিন) গেইটের সামনে এলে আমি তাকে কোথায় কার কাছে যাবেন জিজ্ঞেস করলে সে জানায় সোহানার কাছে যাবেন।(সোহানা ওই ভবন মালিকদের একজন মি. নাজমুল কাদেরের কন্যা) পরে আমি তাকে যেতে দেই।  কিছুক্ষণ পরে আওয়াজ শুনে বাইরে এসে দেখি মেয়েটি পড়ে আছে।

ওই ভবনটি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান থেকে এখনো ভূমির মালিকদের বুঝিয়ে না দিলেও কেবল দ্বিতীয় তলায় ভবন মালিকদের একজন নাজমুল কাদের তার পরিবার নিয়ে থাকছেন। এখনো নির্মান কাজ চলছে। লিফট চালু হয়নি।অথচ হাসিন পায়ে হেঁটেই ৯ তলা ভবনটির ছাদে গিয়ে পৌঁছে। আর সেখান থেকেই তার নিজের বাড়ির মুখি (পশ্চিম দিক) হয়ে লাফ দেয়।হাসিনের দেহ ৯তলা থেকে পড়ে প্রথমে ভবনের সীমানা প্রাচীরের উপরের অংশে নিরাপত্তার জন্য দেয়ালের সঙ্গে যুক্ত করা লোহার গ্রীলে আঘাত হানে এবং ছিটকে ১০ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলরে অফিসের পাশে এসে পড়ে।  কাউন্সিলর মনজুর কাদের মনি তখন অফিসেই ছিলেন।বড় ধরণের শব্দ শনে তিনি ও তার অফিসের কয়েকজন বাইরে এসে দেখেন উপুড় হয়ে রক্তাক্ত অবস্থায় একটি মেয়ে পড়ে আছে।  তাকে কাত করাতে তিনি দেখেন সে প্রতিবেশি ইদ্রিস মেহেদীর মেয়ে হাসিন। দেড়/দুই মিনিট শ্বাস ছিল হাসিনের। এসময় মাথায় পানি ঢালা অবস্থায়ই শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করে হাসিন।

ইঞ্জিনিয়ার ইদ্রিস মেহেদী বিএনপির রাজনীতি করেন। কিন্তু কোন বির্তক বা ঝামেলার মানুষ তিনি নন। নিরবেই দলটি করেন। আর ঠিকাদারিসহ স্যানিটারি ব্যবসা করেন।তিন মেয়ে এক ছেলে আর স্ত্রী জাহানারা বেগমকে নিয়ে সুখের সংসার ইদ্রিস মেহেদীর। আর্থিক টানাপোড়েন নেই সংসারে। ছেলে-মেয়েদের চাহিদাও কখনো অপূর্ণ রাখেননি।বড় মেয়ে জান্নাতুল হেসান স্বামীর সাথে ঢাকায় থাকেন। দুজনই চাকরিজীবী। মেজো মেয়ে জান্নাতুল হাসিন মেধাবী ছাত্রী ছিল। ঢাকায় পড়ালেখার কারণে বড় বোন হেসানের কাছেই থাকতো হাসিন।  ছোট মেয়ে জান্নাতুল ফেরদৌস প্রমি কলেজে পড়ে। আর একমাত্র ছেলে তানভীর মাহতাব প্রিন্স সে কলেজে পড়ে।

নিহত হাসিন খুব সৌখিন ছিল বলে জানা যায়। বন্ধুবান্ধব নিয়ে ঘুরাঘুরিও ছির তার পছন্দের একটি। নিজের প্রায় তিনটি ফেসবুক আইডি রয়েছে জান্নাতুল হাসিনের।একটির নাম zannatul Hasin (আদুরি কন্যা)। এই আইডিতে হাসিন ইংরেজিতে একটি বাক্য ব্যবহার করেছেন। যার বাংলা উচ্চারণ এরকম- ‘আমার ছোট্ট পৃথিবীতে আমি আমার বাবার ছোট্ট রাজকন্যা, মায়ের ছোট্ট পুতুল আর কারো হৃদয়ের রানী। এই আইডি ২০১৯ সালের ৭ নভেম্বরের পর আর ব্যবহার না করলে এটি বন্ধ করা হয়নি। আরেকটি আইডির নাম Xannatul Hasin FoodBank।এই আইডিতে সে খাবার পোষ্ট দিত। সবশেষ ২০১৯ সালের ২৭ এপ্রিল এই আইডিতে Pizza Queen, মিরপুর ২, কমার্স কলেজের অপজিটে দোকানের ঠিকানা উল্লেখ করে পিজ্জা ও পাস্তার ভিডিও পোষ্ট দেয়। আরেকটি আইডি Xannatul Hasin (হাওয়াই মিঠাই) এটি বর্তমানে বন্ধ রয়েছে।

zannatul Hasin (আদুরি কন্যা) নামের এই ফেসবুক আইডিতে জান্নাতুল হাসিনের বেশ কিছু পোষ্ট শিক্ষণীয় পোষ্ট রয়েছে।  রিলেশনশীপের প্রতি তার ইন্টারেষ্ট নেই এমন কথাও লিখেছেন পোষ্টে।  একই বছরের ১৮ মে তারিখে একটি ছেলে-একটি মেয়ে রাস্তায় পাশাপাশি হাটছে এমন একটি ছবি পোষ্ট করে হাসিন লিখেছেন-‘আজকাল যে আরো কত কিছু দেখতে হবে।এরা বড় হয়ে যদি রাস্তা দিয়ে এভাবে চলা ফেরা করে তাহলে ছোটরা কি করবে ।বড়দের কাছে থেকেই তো ছোটরা শিখবে,আর তারাই এসব অপৃতিমূলক কাজ করে। মেয়েটা আমার চেনা এলাকার ছোট বোন। মেয়েদেরকে একটা কথা বলি তোমরা পড়ার নাম করে এভাবে অন্যে একটা ছেলের সাথে ঘোরাঘুরি করে বাবা মাকে ঠকিয়ো না।’ ৩০ মে তারিখে পবিত্র রমজান মাস নিয়ে পোষ্টে লিখেছেন-‘দেখ ভাই, রমজান মাসে রোজা রাখলে শরীরের ওজন কমে না বরং গুনাহ কমে।’

আবার আবেগ অনুভূতি মেশানো কথাও পোষ্ট করেছেন হাসিন।২০১৭ সালের ২ জুন লিখেন-‘কান্না হাসির এই খেলা ঘরে।আমি এক জীবন্ত মাটির পুতুল। সব খেলা বন্ধ হবে একদিন।অপূর্ণ স্বপ্নদের কাকুতি থেমে যাবে। মায়ার পৃথিবীর সাথে হবে চির ছাড়াছাড়ি। ২০১৭ সালের ৮ মে আত্মহত্যা নিয়ে লিখেন- ‘যে মানুষটা আত্মহত্যা করেন/তাকে কেউ না কেউ/আগেই হত্যা করে ফেলেন/ভিতরটা আগেই মরে যায়/পরে অস্তিত্ব বিলীন হয়’।

আত্মহত্যার কারণ সম্পর্কে নিহত হাসিনের বাবা ইদ্রিস মেহেদী কোনো ধারণা দিতে পারেননি।কোনো ছেলের সঙ্গে সম্পর্ক ছিল কি না, তাও তিনি জানেন না। তিনি শুধু এতোটুকই বলেছেন- সোমবার ঢাক থেকে মেয়ে কুমিল্লায় আসার পর খুব ঘুমিয়েছে এবং ঘরের লোকরে সাথে কথা কম বলেছে।

কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের ১০ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর এবং ওই ভবন মালিকের একজন মনজুর কাদের মনি বললেন, ‘ঘটনাটি খুবই দু:খজনক। মেয়েটি আত্মহত্যা করার জন্য এই ভবনটিকেই টার্গেট করেছে।আর বুদ্ধিমত্তার সাথে আমার ভাতিজি সোহানার নামটি ব্যবহার করে ভবনের ভেতরে ঢোকার সুযোগ করে নিয়ে এ অঘটনটি ঘটাল।ওর বাবা  ইদ্রিস মেহেদী সাহেব অত্যন্ত সজ্জ্বন ও ভালো মানুষ।পরিবারের প্রতি খুবই কেয়ারফুল মানুষ। কিন্তু ওনার মেয়েটা কেনো এমন ঘটনা ঘটাল এটা আমরাও বুঝে উঠতে পারছি না।তাই আমি বলবো, সব সন্তানদেরকে বাবা-মা ও পরিবারের কথা ভাবতে হবে। আবার অভিভাবকদেরও সন্তানের ভালমন্দ এসব বিষয়ে খোঁজ খবর রাখতে হবে।  কোনভাবেই যেন পরিবারের মানুষদের মধ্যে একে অপরের মাঝে দুরত্ব সৃষ্টি না হয়।ভুল বুঝাবুঝি, মানাভিমান সংসারে থাকবেই। তাই বলে আত্মহত্যা এসবের সুষ্ঠু সমাধান নয়।এসব ধর্ম বর্হিভূত কাজ সমাজ সংসারে বিরূপ প্রভাব ফেলে।’

উল্লেখ্য, মঙ্গলবার (১ডিসেম্বর) দুপুরে কুমিল্লা নগরীর ধর্মসাগরের পশ্চিমপাড় সিটি করপোরেশন কার্যালয়ের পেছনে নিজ বাড়ি ‘হোমল্যান্ড’ থেকে মাত্র ৫০গজ দূরে একটিনির্মানাধীন ৯ তলা ভবনের ছাদে উঠে সেখান থেকে লাফিয়ে পড়ে আত্মহত্যা করে বিএনপি নেতা ইঞ্জিনিয়ার ইদ্রিস মেহেদীর মেজো মেয়ে বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব বিজনেস অ্যান্ড টেকনোলজি (বিইউবিটি) থেকে বিবিএ সম্পন্ন করা জান্নাতুল হাসিন।

# দেশ-বিদেশের গুরুত্বপূর্ণ খবর জানতে প্রতিসময় (protisomoy) ফেসবুক পেইজে লাইক দিন।  এছাড়া protisomoy ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন ও বেলবাটন ক্লিক করে নতুন নতুন ভিডিও নিউজ পেতে অ্যাকটিভ থাকুন।

Last Updated on December 2, 2020 10:46 pm by প্রতি সময়

শেয়ার করুন
এই ধরনের আরও খবর...

বিস্তারিত জানতে ছবিতে ক্লিক করুন।

themesba-lates1749691102