[অজ্ঞাত রোগে ঝরে পড়ছে মাল্টা]" /> তজুমদ্দিনে রঙিন মাল্টায় চাষীদের চোখে অন্ধকার – প্রতিসময়
সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০৩:৫৫ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
নাঙ্গলকোটে সরকারি জায়গায় বাড়ির সীমানার প্রাচীর নির্মাণের অভিযোগ ফেয়ার হসপিটালের পরিচালনা পর্ষদ দ্বন্ধে চিকিৎসাসেবা বিঘ্নিত সৌদি আরব সফরে ইমরান খান গাড়ির পতাকা, প্রটোকল সবকিছুই সাময়িক; কিন্তু বন্ধুত্বের বন্ধন চিরদিনের : সুইপার বন্ধুকে কাছে পেয়ে ফেসবুকে স্মৃতিকাতর প্রতিমন্ত্রী লালমাইয়ে সিএনজি ফিলিং স্টেশনের আগুনে পুড়ে গেছে প্রাইভেটকার এ দেশ অসাম্প্রদায়িক চেতনার দেশ : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বুড়িচংয়ে দেশীয় অস্ত্রসহ তিন ডাকাত আটক ইকবালের ইন্ধনদাতাকে খুঁজে বের করুন : কুমিল্লায় গয়েশ্বর রায় পিছিয়ে থাকা জনগোষ্ঠীর ভাগ্য উন্নয়নে সকলকে কাজ করতে হবে : সিনিয়র সচিব-আইসিটি বিভাগ ইকবাল ও দারোগাবাড়ি মাজারের সহকারি খাদেমসহ চারজন সাতদিনের পুলিশ রিমান্ডে কুমিল্লার ঘটনা ফেসবুক লাইভে প্রচারকারী ফয়েজের আদালতে স্বীকারোক্তি আল-কায়েদার শীর্ষ নেতা সিরিয়ায় মার্কিন ড্রোন হামলায় নিহত পোলিওমুক্ত বিশ্ব গঠনে রোটারি ইন্টারন্যাশনাল ইকবালকে কারা ব্যবহার করেছে তা উদঘাটনের দাবী নেটিজনদের মুরাদনগরে সম্পত্তি নিয়ে বিরোধ : শিক্ষকের বাড়িতে হামলা লকডাউনকে বিদায় জানালো মেলবোর্নবাসী ক্ষতিগ্রস্তদের ক্ষতিপূরণ দেওয়ার দাবি জানিয়েছে হিন্দু মহাজোট আলোচিত যুবক ইকবালকে কুমিল্লায় এনে চলছে জিজ্ঞাসাবাদ মণ্ডপে কোরআন রাখা ইকবাল অবশেষে গ্রেফতার বেগম রোকেয়া পদকপ্রাপ্ত বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ প্রফেসর জোহরা আনিস আর নেই

তজুমদ্দিনে রঙিন মাল্টায় চাষীদের চোখে অন্ধকার [অজ্ঞাত রোগে ঝরে পড়ছে মাল্টা]

আরিফ হোসেন, তজুমদ্দিন (ভোলা) প্রতিনিধি
  • আপডেট টাইম বৃহস্পতিবার, ১৯ আগস্ট, ২০২১
  • ৭২ দেখা হয়েছে

মাল্টা চাষ করে গত বছর খুব ভালোই ছিলেন ভোলার তজুমদ্দিন উপজেলার মাল্টাচাষী ফরহাদ হোসেন ও তার ভগ্নিপতি মোঃ নুরনবী।আড়ালিয়া গ্রামে মাল্টা চাষীরা তিনশো গাছ দিয়ে চাষ শুরু করে ওই সময় বেশ মুনাফা পেয়েছিলেন। কিন্তু এ বছর অজ্ঞাত রোগের কারণে গাছ থেকে মাল্টা ঝরে পড়ায় ক্ষতির আশঙ্কায় চোখে অন্ধকার দেখছেন চাষীরা।

ফরহাদ ও তার প্রবাসী ভগ্নিপতি নুরনবী মিলে ২০১৮ সালে প্রথমে ৮৮ শতাংশ জমিতে মাল্টা চাষ শুরু করেন। ২০২০ সালে এই বাগান থেকে প্রায় আড়াই লাখ টাকার মাল্টা বিক্রি করে বেশ ভাল লাভ করেছেন।তাদের দেখাদেখি অনেকেই মাল্টা চাষে আগ্রহী হয়ে উঠেন। পরে তারা আরো ১৫২ শতাংশ জমিতে মাল্টা বাগান করেন।

এ বছর গাছে ফলনও ভালো হয়। আশা করেছেন গত বছরের তুলনায় এ বছর আয় দ্বিগুণ হবে। কিন্তু গাছের অজ্ঞাত রোগে তাদের আশা গুড়েবালি। অজ্ঞাত রোগে প্রতিদিন প্রচুর মাল্টা ঝরে পড়ছে। শত চেষ্টা করেও ঝরেপড়া রোধ করতে পারছেননা। মাল্টা পাকতে আরো একমাস সময় লাগবে। ততদিনে হয়ত গাছের সব মাল্টাই ঝরে পড়বে। রঙিন মাল্টায় এমন আশঙ্কায় চোখে অন্ধকার দেখছেন চাষীরা। বাগানের এমন অবস্থায় চাষি ফরহাদ হোসেনসহ মাল্টাচাষীরা কৃষি বিভাগের সহায়তা কামনা করেছেন।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা অপূর্ব লাল সরকার ক্ষতিগ্রস্থ মাল্টাচাষীদের সব ধরনের সহযোগীতার আশ্বাস দিয়ে বলেন, গত বছর বর্ষার মৌসুমে মাল্টা বাগানটি পানিতে ডুবে যায়। যে কারণে গাছ দূর্বল হয়ে শক্তি কমে যাওয়ায় এবছর মাল্টা ঝরে পড়ছে। তবে নিয়মিত বাগান পরিচর্যা ও পরিমিত সার ওষুধ প্রয়োগেই মাল্টা ঝরেপড়া রোধ করা যেতে পারে।ক্ষতিগ্রস্থ চাষীদের নিয়মিত প্রযুক্তিগত সহায়তা করা হবে।

# দেশ-বিদেশের গুরুত্বপূর্ণ খবর জানতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।

Last Updated on August 19, 2021 8:05 pm by প্রতি সময়

শেয়ার করুন
এই ধরনের আরও খবর...

বিস্তারিত জানতে ছবিতে ক্লিক করুন।

themesba-lates1749691102
error: Content is protected !!