বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২, ১০:৪৭ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
নগরভবনে মেয়র রিফাত কুমিল্লা শহরতলির চাঁনপুর মধ্যপাড়ার শাপলা বিদেশী মদসহ আটক এমপি বাহারকে সঙ্গে নিয়ে ধানমন্ডিতে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে কুসিক মেয়র রিফাত ও কাউন্সিলরদের শ্রদ্ধা নিবেদন চৌদ্দগ্রামে মোবাইল কেনা নিয়ে ছুরিকাঘাতে যুবক নিহত কুমিল্লা নগরীতে টোকেনে ঘুরে অবৈধ বাহনের চাকা মেয়র হিসেবে শপথ নিয়েছেন রিফাত -ভার্চুয়ালি শপথ পাঠ করান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সংযোগ সড়ক না থাকায় মুরাদনগরে কালভার্ট পারাপারে বাঁশের সাঁকোই ভরসা ভয়েস মেসেজে দেশবাসীকে ঈদুল আজহার শুভেচ্ছা জানালেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কুমিল্লা সদরে আমন চাষিদের মাঝে বিনামূল্যে বীজ ও সার বিতরণ প্যারোলে মুক্তি নিয়ে শপথ নেবেন নবনির্বাচিত কাউন্সিলর কিবরিয়া ও বাবু কুসিকের নবনির্বাচিত মেয়র ও কাউন্সিলরদের শপথ মঙ্গলবার ‘বিশ্ব বিরিয়ানি দিবস’পালন একজন মাহাথিরে পাল্টে গেছে মালয়েশিয়া আর শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বদলে যাবে বাংলাদেশ : এমপি বাহার দাউদকান্দিতে দুই পিলার ভেঙে ঝুঁকিতে সেতু চান্দিনায় সংবর্ধিত হলেন পরিবেশবান্ধব মতিন সৈকত দেবিদ্বারের সম্মেলন ঘিরে রাজী-কালাম গ্রুপের দ্বন্দ্ব কুসিকের মেয়র ও কাউন্সিলরদের শপথগ্রহণ মঙ্গলবার অটোচালকের খুনীদের গ্রেফতার ও বিচার চায় পরিবার সুনামগঞ্জে বন্যার্তদের পাশে কুমিল্লা দোকান মালিক সমিতি মুরাদনগরে ড্রেজার মেশিনের বিরুদ্ধে উপজেলা প্রশাসনের অভিযান

‘জীবনধারার পরিবর্তন কমাতে পারে হার্ট অ্যাটাক ও স্ট্রোকের ঝুঁকি’ -ডা. তৃপ্তীশ চন্দ্র ঘোষের লেখাটি পড়ুন স্বাস্থ্য পাতায়

স্বাস্থ্য ডেস্ক
  • আপডেট টাইম সোমবার, ২৪ আগস্ট, ২০২০
  • ৩৮০ দেখা হয়েছে

হার্ট অ্যাটাক এবং স্ট্রোকের অন্যতম প্রধান কারন হলো উচ্চ রক্তচাপ। জীবনধারা পরিবর্তনের মাধ্যমে উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করা যায়। আর এজন্য জীবনধারায় কিছুটা পরিবর্তন আনতে পারলে উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে থাকবে এবং হৃদরোগের  এবং স্ট্রোকের ঝুঁকিও কমে। এনিয়ে ‘প্রতিসময়’ এর স্বাস্থ্য বিভাগে সপ্তাহের সোমবার বুধবারের আয়োজনে আজ লিখেছেন ময়নামতি মেডিকেল কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ, বিশেষজ্ঞ কার্ডিওলজিষ্ট, হৃদরোগ বিষয়ক লেখক, কবি  এবং কুমিল্লা হার্টকেয়ার ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি প্রফেসর ডা. তৃপ্তীশ চন্দ্র ঘোষ

‘জীবনধারার পরিবর্তন কমাতে পারে হার্ট অ্যাটাক স্ট্রোকের ঝুঁকি’

হার্ট অ্যাটাক হচ্ছে হঠাৎ মৃত্যুর অন্যতম প্রধান কারণ। হার্ট অ্যাটাক হয়েছে এমন দুই তৃতীয়াংশ মানুষ মারা যায় কোনরকম চিকিৎসা পাওয়া ছাড়াই। আর স্ট্রোকের বেলায় চিত্র আরও ভয়াবহ। স্ট্রোকের রোগীরা আধুনিক চিকিৎসা পাওয়ার পরও শতকরা ৬০জন মারা যায় অথবা বিকলাঙ্গ হয়ে থাকে। হার্ট অ্যাটাক এবং স্ট্রোকের ঝুঁকি জীবনধারা পরিবর্তনের মাধ্যমে কমিয়ে আনা সম্ভব।

হার্ট অ্যাটাক হয় হঠাৎ করে কিন্তু এর প্রক্রিয়া শুরু হয়ে থাকে অনেক আগ থেকে। মানুষ বেশিরভাগ সময়ই বুঝে উঠতে পারে না তার ভিতরে কি সমস্যা হচ্ছে। ফলে চিকিৎসা নিতে দেরি করে ফেলে। বেশিরভাগ মানুষই গ্যাস্ট্রিক আলসারের ব্যাথা ভেবে এটিকে প্রাথমিক অবস্থায় ভুল করে থাকে। হার্ট অ্যাটাক যেকোন সময়েই হতে পারে। যেমন-কর্মক্ষেত্রে, খেলার মাঠে, ঘরে বিশ্রামের সময় বা সাংসারিক কাজে ব্যস্ত থাকাবস্থায়।

হার্ট অ্যাটাকের লক্ষণসমূহ: সাধারণত বেশিরভাগ হার্ট অ্যাটাকের ক্ষেত্রে বুকের ঠিক মাঝখানে ব্যাথা বা অস্বস্তিভাব অনুভূত হয়ে কয়েক মিনিট স্থায়ী হয়। এই ব্যাথা কমে গিয়ে আবার কিছুক্ষণ পর ফিরে আসে। অনেক সময় ব্যাথা না হয়ে একটা অস্বস্তিকর চাপ, মোচরানো অথবা পেট ভরা ভরা ভাব লাগতে পারে। এছাড়াও বুকের ব্যাথা বা অস্বস্তিভাব ছাড়াও ব্যাথা অনেক সময় বুকে না হয়ে শুধু বাম বাহু অথবা দুই বাহু, পিঠের দিকে, ঘাড়ে-গলায়, চোয়ালে কিংবা পেটের উপরের দিকে অনুভূত হতে পারে। কোন কোন ক্ষেত্রে হার্ট অ্যাটাকের ব্যাথা শুধুমাত্র শ্বাসকষ্টের মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকতে পারে। এসব ছাড়াও শরীর ঠান্ড হয়ে ঘাম দেয়া, বমির ভাব হওয়া, হঠাৎ করে মাথা হালকাভাব রোধ করা ইত্যাদি উপসর্গগুলোকেও হার্ট এ্যাটাকের সতর্কিকরণ লক্ষণ হিসাবে ধরা হয়।

হার্ট অ্যাটাক ও স্ট্রোক হলে করণীয়: হার্ট অ্যাটাকের ওইসব লক্ষণ যদি দেখা দেয় তবে সম্ভব হলে রোগীকে সাথে সাথে ৩০০মিলিগ্রাম এসপিরিন খাইয়ে কালক্ষেপণ না করে দ্রুত নিকটস্থ হাসপাতালে অথবা হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ বা নুন্যতম কোন চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যাবেন এবং দ্রুত ইসিজি করাবেন। এই সময়ের প্রতিটি মুহূর্ত গুরুত্বপূর্ণ মনে করতে হবে। হার্ট অ্যাটাক হলে যত দ্রুত সম্ভব হাসপাতালে নিয়ে যাওয়াটা উত্তম।

স্ট্রোকও হার্ট অ্যাটাকের মতো। তবে ঘটনাগুলো ঘটে হার্টের পরিবর্তে মস্তিস্কে। হার্ট অ্যাটাক এবং স্ট্রোকের অন্যতম প্রধান কারন হলো উচ্চ রক্তচাপ। জীবনধারা পরিবর্তনের মাধ্যমে উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করা যায়। আর এজন্য ধূমপান-অতিরিক্ত মদ্যপান ত্যাগ করা, ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখা, শারীরিক পরিশ্রম করা, প্রতিদিনের খাবারে আলগা লবন পরিহার করা, টাটকা ফল এবং শাকসবজি আহারের অভ্যাস করা। জীবনধারায় এ পরিবর্তন আনতে পারলে উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে থাকবে এবং হৃদরোগের  এবং স্ট্রোকের ঝুঁকিও কমে।

# দেশবিদেশের গুরুত্বপূর্ণ খবর জানতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন

Last Updated on August 24, 2020 4:44 am by প্রতি সময়

শেয়ার করুন
এই ধরনের আরও খবর...

বিস্তারিত জানতে ছবিতে ক্লিক করুন।

themesba-lates1749691102
error: Content is protected !!