রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০৫:৫৯ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
মুরাদনগরে ড্রেজার মেশিনের বিরুদ্ধে উপজেলা প্রশাসনের অভিযান নাচ গানে বর্ষার বন্দনা কুমিল্লা সাংস্কৃতিক জোটের কুসিক মেয়র রিফাতকে মহানগর ক্লাবের ফুলেল শুভেচ্ছা লাকসাম পৌর বিএনপির সম্মেলন কুমিল্লা শহরে করতে এসে বাধার মুখে চৈতী কালাম গ্রুপ মুরাদনগরে নারী মানবাধিকার কর্মীকে মারধরের ঘটনার মামলায় একজন আটক  ভুয়া কাবিননামায় স্ত্রী দাবী! ইংল্যান্ড প্রবাসীর সম্পদ দখলের অভিযোগ সংবাদসম্মেলনে খেলাধূলা এগিয়ে নিতে ও ভালো মানের খেলোয়াড় সৃষ্টিতে করণীয় বিষয়ে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেওয়া হবে : মেয়র রিফাত মুরাদনগরে শালিসে নারী মানবাধিকার কর্মীকে মারধর ও শ্লীলতাহানি -সোশ্যাল মিডিয়ায় ভিডিও ভাইরাল কুমিল্লায় র‌্যাবের পৃথক অভিযানে গাঁজা ও ইয়াবাসহ দুই জন আটক  বিপুল ত্রাণসামগ্রী নিয়ে বন্যার্তদের পাশে আবিদপুর সিটিজি যুবসমাজ ডা. মল্লিকা বিশ্বাস আন্তর্জাতিক নারী সংগঠন ইনার হুইল ডিস্ট্রিক্ট চেয়ারম্যান নির্বাচিত শিক্ষার্থীদের অনিয়ম ও অপকৌশল চর্চার শিক্ষা না দেওয়ার আহ্বান উপজেলা চেয়ারম্যান টুটুলের কুমিল্লায় আইজিপি কাপ কাবাডিতে বান্দরবান চ্যাম্পিয়ন সদর দক্ষিণে প্রশাসনের হস্তক্ষেপে বাল্যবিয়ে বন্ধ, বিয়ে বাড়ির খাবার এতিমখানায় বিতরণ কুমিল্লায় ধর্ষণের অভিযোগে চাষী মামুন গ্রেফতার কুসিকের নব নির্বাচিত মেয়র কাউন্সিলরদের শপথ গ্রহণ ৪ জুলাই আজকের শিক্ষার্থীদের আগামী দিনে পরিবেশ সংরক্ষণে এ্যাম্বেসেডর হতে হবে -পরিবেশ দিবসের আলোচনা সভায় শওকত আরা কলি সেবার মান সন্তোষজনক পর্যায়ে উন্নীত না পর্যন্ত গ্রামীণফোনের সিম বিক্রিতে নিষেধাজ্ঞা বিএনপির কেন্দ্রীয় ত্রাণ তহবিলে কুমিল্লা মহানগর বিএনপির চেক হস্তান্তর লাকসামে বিদ্যুৎ স্পৃষ্ট হয়ে স্বামী-স্ত্রীর মৃত্যু

তজুমদ্দিন সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসক ও জনবল সংকটে মেলে না কাঙ্ক্ষিত সেবা

আরিফ হোসেন, তজুমদ্দিন (ভোলা) প্রতিনিধি
  • আপডেট টাইম মঙ্গলবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ২১৮ দেখা হয়েছে

নেই প্রয়োজনমত চিকিৎসক, নেই বিভিন্ন বিভাগে জনবল। ফলে এধরণের সংকটে স্বাস্থ্যসেবায় দুরবস্থা দেখা দিয়েছে ভোলার তজুমদ্দিনের ৫০ শয্যা সরকারি হাসপাতালে।
হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীরা পড়ছেন ভোগান্তিতে। জনবলের এমন সংকটের কারণে নষ্ট হচ্ছে এক্সরে মেশিন, ল্যাবসহ টেকনিক্যাল গুরুত্বপূর্ণ জিনিসপত্র।

জানা যায়, উপজেলার সাধারণ মানুষের চিকিৎসার একমাত্র ভরসা হাসপাতালটি হলেও এখানে রয়েছে চিকিৎসকের ৬টি পদ শূণ্য। একজন মেডিকেল অফিসার ইউনানী থাকলেও দীর্ঘদিন তিনি প্রেষনে রয়েছে বোরহানউদ্দিনে। পদগুলি শূণ্য থাকায় রোগীরা পাচ্ছেন না প্রয়োজীয় চিকিৎসাসেবা। বাধ্য হয়েই রোগীদের যেতে হচ্ছে ভোলা সদর, বরিশাল অথবা রাজধানী ঢাকাতে।

এছাড়া হাসপাতালটিতে যে সকল পদ শূণ্য রয়েছে, ইউনিয়ন সেন্টারে সহকারী সার্জন ৫টিতে ১টি শূন্য, নাসিং সুপারভাইজার ২টিতে ২টি শূণ্য, সিনিয়র ষ্টাফ নার্স ১৩ জন থাকলেও ১জন রয়েছে ভোলা প্রেষনে, হাসপাতালে স্যাকমো ৭টিতে ৬টি শূন্য, মেডিকেল টেকনোলজিষ্ট (ল্যাব) ২টিতে একজন থাকলেও তিনি রয়েছেন প্রেষনে ভোলায়, মেডিকেল টেকনোলজিষ্টের ৪টি পদে ২জন থাকলেও তাদেও একজন প্রেষনে ভোলা সদরে অন্যজন ১০ বছর যাবৎ রয়েছেন ঢাকায় প্রেসনে আর ২টি রয়েছে শূন্য। ফার্মাসিষ্ট ২টিই শূণ্য, প্রধান সহকারী কাম-হিসাব রক্ষকের পদটি শূণ্য, অফিস সহকারী কাম-কম্পিউটার অপারেটরের ৩টি পদেই শূন্য, ষ্টোর কিপার ১টিতে একটি শূন্য, পরিসংখ্যানবিদ ১জন থাকলেও তিনি প্রেষনে ভোলায় রয়েছেন। সহকারী সেবক ১টিকে একটি শূণ্য, স্বাস্থ্য পরিদর্শকের ২টি পদ শূন্য, সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক ৬টিতে ২টি শূন্য একজন ভোলায় প্রেষনে, স্বাস্থ্য সহকারী ৩২টিতে ৬টি শূন্য, পিএইচসিপি ১৯টিতে ৪টি শূন্য, অফিস সহায়ক ৪টিতে দুইটি, ওয়ার্ডবয় ৩টিতে দুইটি, কুক/মশালচী ২টিতে দুইটি, মালী ১টিতে একটি ও পচ্ছিন্নতা কর্মি ৫টিতে ৩টি শূন্য।

অনুসন্ধানে জানা যায়, একটি পদে একজন কর্মরত থাকলেও আবার সেই কর্মরত ব্যক্তি নিজের পছন্দমত জায়গায় প্রেষন নিয়ে বসে আছেন। তারা ৬মাস থেকে শুরু করে ১০ বছর পর্যন্ত প্রেষনে রয়েছে। যার কারণে তার নিজ কর্মস্থল তজুমদ্দিন হাসপাতালটিতে চিকিৎসাসেবা হতে বঞ্চিত হচ্ছেন সাধারণ মানুষ।

সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, জনবল সংকটে নষ্ট ও অকেজো হচ্ছে এক্সরে মেশিনসহ মূল্যাবান মেশিনপত্র। চিকিৎসক সংকটের কারণে সেবা নিতে আসা রোগীরা দীর্ঘ সময় লাইনে দাড়িয়ে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

হাসপাতালে চিকিৎসাসেবা নিতে আসা স্বপন দেবনাথ বলেন, হাসপাতালটিতে ডাক্তার সংকট না হলে আমাদেরকে দীর্ঘ সময় ব্যবস্থাপত্রের জন্য লাইনে দাড়িয়ে থাকতে হতো না। দীর্ঘ সময় লাইনে দাড়িয়ে সেবা নিতে আসা রোগীদের ভোগান্তি বাড়ছে।

তজুমদ্দিন হাসপাতালের আরএমও ডা. মোঃ হাসান শরীফ বলেন, জনবল সংকটের কারণে রোগীর বিভিন্ন ধরনের টেষ্ট বাহিরে করতে হয়। আর তখনি রোগীদের সাথে আমাদের সমস্যার সৃষ্টি হয় জনবল ঠিক থাকলে হাসপাতালে সরকারী খরচে রোগীরা কম খরচে টেষ্ট করাতে পারতো। তিনি আরো বলেন, বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক না থাকায় শিশু ও অর্থপেডিকসের রোগীদের আমরা ভোলায় রেফার করতে হয়। এখানে ডাক্তার থাকলে মানুষ ভোলায় যেতে হতো না।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. সোহেল কবির বলেন, হাসপাতালটিতে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পদ থাকলেও স্বাধীনতার পর থেকে কোন বিশেষজ্ঞ চিৎিসকে পদায়ন করা হয়নি। ডাক্তার, জনবল সংকট ও প্রেষনের বিষয়ে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে আশা করা যায় দ্রæত সমাধান হবে। তিনি আরো বলেন, প্রেষনের বিষয়ে সুনিদিষ্ট নীতিমালা থাকার দরকার যে সে কতদিন প্রেষন ভোগ করতে পারবে।

#দেশবিদেশের গুরুত্বপূর্ণ খবর জানতে protisomoy ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে এবং protisomoy news ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করে অ্যাকটিভ থাকুন

Last Updated on September 22, 2020 3:17 pm by প্রতি সময়

শেয়ার করুন
এই ধরনের আরও খবর...

বিস্তারিত জানতে ছবিতে ক্লিক করুন।

themesba-lates1749691102
error: Content is protected !!